বাঙালিনিউজ

বাঙালিনিউজ
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সৎ, আদর্শবান ও জনপ্রিয় জননেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে শোকাহত শুধু আওয়ামী লীগ পরিবার না, দল-মত নির্বিশেষে সারাদেশের সর্বস্তরের মানুষ  তাঁর মৃত্যুতে ব্যথিত ও মর্মাহত। রাজনীতির এই সংকটপূর্ণ সময়ে তাঁর উপস্থিতির বড় প্রয়োজন ছিল, এমনটাই মনে করেন সবাই। কিন্তু নিয়তির ওপর তো কারো হাত নেই।

কিন্তু কিশোরগঞ্জবাসী আওয়ামী লীগের দুর্দিনের অন্যতম অকুতভয় বীর জননেতা, সাবেক সফল সাধারণ সম্পাদক, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে ভুলতে চান না। তাই এলাকাবাসী তাঁর শূন্য আসনে (কিশোরগঞ্জ-১) একমাত্র সন্তান সৈয়দা রীমা ইসলামকে প্রার্থী করার দাবিতে সরব।

বাঙালিনিউজ

তা ছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ গত ক’দিন ধরেই রীমাকে প্রার্থী করার দাবি জানাচ্ছেন। কিশোরগঞ্জের মানুষ রীমা ইসলামকে সৈয়দ আশরাফের যোগ্য উত্তরাধিকার হিসেবে মনে করছেন। কিশোরগঞ্জের নেতারা বলছেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের উচ্চশিক্ষিত কন্যা সবদিক থেকেই যোগ্য। তাঁকে প্রার্থী করা হলে কারও কোনো প্রশ্ন থাকবে না। তারা বলছেন, রীমা ইসলামের মাঝেই সৈয়দ আশরাফের প্রতিচ্ছবি দেখা যায়। তাকে প্রার্থী করা হলেই সৈয়দ আশরাফের প্রতি যথাযথ সম্মান দেখানো হবে।

কিশোরগঞ্জের বিজ্ঞমহলও মনে করেন, সততা ও আদর্শের মাপকাঠিতে রীমা ইসলামই পিতার ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পারবেন। তারা বলেন, রীমার প্রতি সাধারণ মানুষের আবেগ-অনুভূতি কাজ করছে। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শরীফ সাদী বলেন, বিষয়টা নির্ভর করছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর। আমরা তাঁর দিকেই তাকিয়ে আছি।

বাঙালিনিউজ

যুক্তরাজ্যে জন্ম নেয়া ও বেড়ে উঠা রীমা ইসলামের পড়ালেখা ও কাজ যুক্তরাজ্যেই। সৈয়দা রীমা ইসলাম লন্ডনের একটি বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেছেন। করেছেন এমবিএ। বর্তমানে তিনি লন্ডনে এইচএসবিসি ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে উচ্চপদে কর্মরত। পড়ালেখা শেষে ব্যাংক কর্মকতা হিসেবে চাকরিতে যোগ দেন রীমা ইসলাম।

তবে জানা গেছে, এখনই রাজনীতিতে নামার ইচ্ছে নেই প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মেয়ে রীমা ইসলামের। কিন্তু সময় ও বাস্তবতার নিরিখে সিদ্ধান্ত বদলও হতে পারে। আর সেটা পুরোপুরি নির্ভর করছে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার ওপর। তিনি যা চাইবেন, তাই হবে। সৈয়দ আশরাফের পরিবারের সদস্যরা এমনই আভাস দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

বাঙালিনিউজ

রীমা ইসলামের রাজনীতিতে আসার বিষয়ে তাঁর পরিবারের সদস্যরা বলছেন, এখনই এমন কিছু চিন্তা করেননি তাঁরা। মানসিক অবস্থার কথা বিবেচনায় রেখে পরিবারে এ নিয়ে তেমন কোনো আলাপও হয়নি।

এ বিষয়ে রীমা ইসলামের চাচা সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম বলেন, আমাদের পরিবারের অভিভাবক জননেত্রী শেখ হাসিনা। আমাদের পরিবার থেকে কিশোরগঞ্জ-১ আসনে তিনি কাজ করতে বললে তার অন্যথা হবে না।

বাঙালিনিউজ

সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম জানান, শেখ হাসিনা যেভাবে চান সেভাবেই হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ যতদিন থাকবে এবং আমাদের পরিবার যতদিন থাকবে, ততদিনই আমরা জননেত্রী শেখ হাসিনার পাশে থাকতে চাই।

অল্প সময়ের ব্যবধানে মা ও বাবাকে হারানো রীমা ইসলাম বাবার মতোই স্বল্পভাষী। তবে, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত সময়ের ওপর ছেড়ে দিতে চান তারা।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অন্যতম সহচর, মুজিবনগর সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ও ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট জাতির জনক নিহত হবার পর কারাবন্দি হয়ে ৩ নভেম্বর ঢাকায় কেন্দ্রীয় কারাগারে নিহত জাতীয় ৪ নেতার অন্যতম সৈয়দ নজরুল ইসলামের নাতনি, প্রয়াত নেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের একমাত্র কন্যা রীমা ইসলাম।

কয়েক মেয়াদে মন্ত্রী এবং দুইবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করা প্রচারবিমুখ বাবা সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মতোই রীমা ইসলাম। জনসম্মুখে খুব একটা দেখা যায়নি তাঁকে। সৈয়দ আশরাফের স্ত্রী’র অসুস্থতা ও চিকিৎসার সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ছবির মাধ্যমে তাদের মেয়ে রীমা ইসলামকে প্রথম দেখেন অনেকে।

Print Friendly, PDF & Email