বাঙালিনিউজ
চিকিৎসা শেষে দেশে ফেরার জন্য সিঙ্গাপুরের চাঙ্গি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অপেক্ষা করছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীওবায়দুল কাদের।

বাঙালিনিউজ
নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরছেন। আজ ১৫ মে ২০১৯ বুধবার দুপুরে সিঙ্গাপুরের চাঙ্গি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তাঁর দেশের পথে রওনা দেওয়ার কথা।

কাদেরের সফরসঙ্গী এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা শেখ ওয়ালিদ ফয়েজ মিডিয়াকে জানিয়েছেন, দুই মাস ১০ দিন চিকিৎসার পর আজ দেশে ফিরছেন সেতুমন্ত্রী। সকালে তিনি সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের পাশের ভাড়া বাসা থেকে ত্যাগ করেন। ওবায়দুল কাদের এখন চাঙ্গি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন।

জানা গেছে, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ফ্লাইট নম্বর বিজি ০৮৫-তে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করবেন ওবায়দুল কাদের। তিনি সন্ধ্যা ৬টায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবেন। বিমানবন্দরে তাঁকে অভ্যর্থনা জানাবেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গত ০৩ মার্চ ভোরে ঢাকার নিজ বাসায় শ্বাসকষ্ট শুরু হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) ইনসেনটিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) ভর্তি হন। সেখানে এনজিওগ্রাম করার পর তার করোনারি ধমনিতে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে।

সেদিন তাকে দেখতে হাসপাতালে ছুটে যান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকরাসহ সর্বস্তরের মানুষ তাঁকে দেখতে হাসপাতালে ভিড় করেন।

পরদিন ৪ মার্চ উপমহাদেশের বিখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. দেবী শেঠির পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে সিঙ্গাপুরে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ২০ মার্চ ওবায়দুল কাদেরের বাইপাস সার্জারি হয়।

সুস্থ হওয়ার পর গত ০৫ এপ্রিল মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পান ওবায়দুল কাদের। তবে এর পর চিকিৎসকরা তাঁর শারীরিক অবস্থার ফলোআপ প্রত্যক্ষ করেন। এজন্য তাঁকে ওই হাসপাতালের কাছেই ভাড়া বাসায় রাখা হয়েছিল। সিঙ্গাপুরে দীর্ঘ দুই মাসব্যাপী চিকিৎসার সময় ওবায়দুল কাদেরের পাশে ছিলেন তার স্ত্রী ইসরাতুন্নেসা কাদের।

Print Friendly, PDF & Email