বাঙালিনিউজ
মায়ের মরদেহ সাইকেলে নিয়ে শ্মশানের পথে সরোজ

বাঙালিনিউজ
আন্তর্জাতিকডেস্ক

ভারতের উড়িষ্যা রাজ্যের সুন্দরগড়ে মা জানকী সিংহানিয়া বহু বছর ধরে একমাত্র ছেলেকে নিয়ে সংসার চালাতেন। ছেলে সরোজকে ছোট থেকে মানুষ করছিলেন তিনি। কারণ, জানকীর সংসারে ছেলে সরোজ ছাড়া আর কেউ ছিল না।

গতকাল ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ বৃহস্পতিবার সকালে কুয়োয় জল তুলতে গিয়ে হঠাৎ জ্ঞান হারান জানকীদেবী। তারপর ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। খবরটা শুনে প্রথমে দিশেহারা হয়ে যায় তাঁর একমাত্র কিশোর ছেলে সরোজ। ঘরে ফিরে মায়ের সৎকারের জন্য প্রতিবেশিদের কাছে সাহায্যের আশায় বেরোয় নাবালক সরোজ। কিন্তু পাড়ার ‘নিচু’ জাতের ছেলেকে এমন সময় সাহায্য করত চাননি কোনও প্রতিবেশি।

বাধ্য হয়ে নাবালক সরোজ মায়ের মরদেহ তুলে নেয় সাইকেলে। প্রায় চার-পাঁচ কিলোমিটার দূরের জঙ্গলে মা জানকীদেবীকে নিয়ে যায় সে। প্রতিবেশিরা তাকিয়ে দেখেন। কিন্তু কেউ এগিয়ে আসেননি। পথে অবশ্য অনেকে কৌতুল ভরে তাকে নানা প্রশ্ন করেছেন। কিন্তু সাহায্য কেউ করেননি। চোখের জল মুছতে মুছতে মায়ের মৃত দেহ সাইকেলে চাপিয়ে ক্লান্ত শরীরে শ্মশানের উদ্দেশে হেঁটেছে কিশোর সরোজ দীর্ঘ পথ।

অনেক ছোটবেলায় সরোজ বাবাকে হারিয়েছিল। তারপর থেকে মাকে ঘিরেই তার পৃথিবী। মা জানকীর হঠাৎ মৃত্যুতে তাই সরোজের জীবনের সব কিছু এলোমেলো হয়ে গেল। এত বড় ধা্ক্কা সামলাতে সময় লাগবে তার। কিন্তু বাস্তব মেনে নিয়ে কাঁদতে কাঁদতে সে বাড়ি থেকে বেরিয়েছে।

চাষবাস করে দিন গুজরান করা সরোজের হাতে টাকা ছিল না। মায়ের সৎকারের টাকাটুকুও ছিল না কৃষক ছেলের হাতে। তাই হাত পেতেছিল প্রতিবেশিদের দিকে। ক’টা টাকা হাতে পেলে মায়ের সৎকার করতে পারত। কিন্তু হাত পাতাই সার হয় তার! একজন প্রতিবেশিও সরোজের এমন দুঃসময়ে এগিয়ে আসেনি। দুঃসময়ের লড়াই তাকে একাই লড়তে হল। একাই বেরুতে হলো শ্মশানের পথে।

বছর দুয়েক আগে দানা মাঝি নামে এক চাষীর মর্মস্পর্শী ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল। মৃত স্ত্রীর দেহ তাঁরই কাপড়ে মুড়ে ১০ কিমি রাস্তা হেঁটেছিলেন তিনি। পিছনে কাঁদতে কাঁদতে হাঁটছিল তাঁর মেয়ে। এবার সরোজ একা শ্মশানে গেল তার মৃত মাকে সাইকেলে নিয়ে! ধর্ম-বর্ণ-জাত-পাতের নাগপাশ ছাড়িয়ে ভারতীয় সমাজ যে এখনও বেরোতে পারেনি, এই মর্মান্তিক ঘটনাগুলো তার নিষ্ঠুর প্রমাণ। সূত্র: জি ২৪ ঘণ্টা।

Print Friendly, PDF & Email