বাঙালিনিউজ

বাঙালিনিউজ
বিনোদনডেস্ক

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের আগে আরও এক বড় চমক বিজেপির। শোনা যাচ্ছে আগামী লোকসভা নির্বাচনে না কি পুনে থেকে ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী হচ্ছেন বলিউড হার্টথ্রব মাধুরী দিক্ষিত। পদ্ম শিবিরের খবর অনুযায়ী, মাধুরীর ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা নিয়ে ইতিমধ্যেই আলোচনা করেছেন বিজেপির শীর্ষ নেতারা। মাধুরীর নামে না কি সিলমোহর বসিয়েছেন খোদ অমিত শাহ। জানা গেছে, মহারাষ্ট্রের বিজেপি নেতারাও মাধুরীর নাম রেখেছেন প্রথম বাছাইয়ের মধ্যেই।

চলতি বছরের শুরুতেই মাধুরী দীক্ষিতের মুম্বইয়ের বাড়িতে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করে আসেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। জুন মাসে বিজেপির নেওয়া ‘সম্পর্ক ফর সমর্থন’ কর্মসূচির সময়ই তাঁর সঙ্গে দেখা করেছিলেন শীর্ষ বিজেপি নেতৃত্ব। এরপর কেটে গেছে আরও ৬ মাস। গেরুয়া শিবিরও ব্যস্ত হয়ে পড়েছে পাঁচ রাজ্যের ভোটে। এমন অবস্থায় হঠাৎ মাধুরী দীক্ষিতের নাম বিজেপি প্রার্থী তালিকায় উঠে আসায় খুব স্বাভাবিকভাবেই আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

মহারাষ্ট্রের এক শীর্ষ নেতা পিটিআই-কে জানিয়েছেন, “২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে মাধুরী দীক্ষিতকে প্রার্থী করার বিষয়ে দল ভাবনা চিন্তা করছে। আমাদের মনে হয়েছে, পুনে আসনটিই তাঁর ভোটে লড়ার ক্ষেত্রে সবচে’ ভালো।”

বাঙালিনিউজ
বলিউড সুন্দরী মাধুরী দীক্ষিতের বাড়িতে বিজেপি প্রধান অমিত শাহ

উল্লেখ্য, গত লোকসভায় পুনে আসন থেকে ভোটে লড়েছিলেন বিজেপি প্রার্থী অনিল শিরোলে। কংগ্রেস প্রার্থীর চেয়ে তিন লাখেরও বেশি ভোটের ব্যবধানে তিনি জিতেছিলেন। এখন প্রশ্ন, এতো ভালো ফল করার পরও কেন সেই আসনে পুরনো প্রার্থীকে টিকিট দিতে চাইছে না বিজেপি?

ওয়াকিফহাল মহলের একাংশের মতে, পুনেতে আগের তুলনায় অনেকটাই রাশ হালকা হয়ে গিয়েছে বিজেপির। সংগঠনেও ফাটল ধরেছে। মাস কয়েক আগে যেভাবে পুনে থেকে কৃষক আন্দোলন সংগঠিত করল বামেরা, তাতে কিছুটা হলেও কোণঠাসা হয়েছে ভারতের শাসক দল বিজেপি। এমন অবস্থায় বলিউড তারকা মাধুরী দীক্ষিতকে সেখানে প্রার্থী করে পুনে আসনটি সুরক্ষিত করতে চাইছে বিজেপি।

প্রসঙ্গত, মাধুরী ছাড়াও এমন অনেক তারকাকেই না কি এবার প্রার্থী করার কথা ভাবছে বিজেপি। অতীতে উত্তরপ্রদেশের মথুরা আসন থেকে ভোটে লড়েছেন বলিউডের ‘ড্রিমগার্ল’ খ্যাত হেমা মালিনী। তারও আগে বলিডিভা জয়াপ্রদা (সমাজবাদী পার্টি), দক্ষিণী তারকা নাগমা (কংগ্রেস) লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন। তবে তাঁরা কেউ জেতেননি।

বাঙালিনিউজ

উল্লেখ্য, শুধু বিজেপি-ই নয়, নায়িকাদের প্রার্থী করে ফায়দা তুলেছে বিরোধীরাও। তৃণমূল কংগ্রেসের কথাই ধরা যাক। তৃণমূল প্রার্থী অভিনেত্রী মুনমুন সেন বাসুদেব আচারিয়ার মতো বর্ষীয়ান কমিউনিস্ট সাংসদকে হারিয়ে দিয়েছেন। ভোটের বৈতরণী পার করেছেন সন্ধ্যা রায়, শতাব্দী রায়ের মতো টলি অভিনেত্রীরাও।

বাংলায় বিজেপিও একটা চেষ্টা করেছিল বটে, তবে তাঁরা সফল হয়নি। রূপা গঙ্গোপাধ্যায়, লকেট চট্টোপাধ্যায়দের প্রার্থী করলেও তা ফলপ্রসূ হয়নি। নির্বাচনী পরীক্ষায় ফেল করেছেন তাঁরা। এবার হয়ত সেই একই পরীক্ষায় অংশ নিতে যাচ্ছেন মাধুরী দীক্ষিতও! সাফল্য কি পাবেন? বলবে সময়ই। তবে তার আগে প্রশ্ন, আসলেই কী মাধুরী দীক্ষিত বিজেপির প্রার্থী হয়ে ভোটে দাঁড়াচ্ছেন? মাধুরী কিন্তু এখনো সেটা নিশ্চিত করেননি।

Print Friendly, PDF & Email