বাঙালিনিউজ

বাঙালি নিউজ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

আগামী ১১ এপ্রিল ভারতে লোকসভা নির্বাচন শুরু হচ্ছে। সারা দেশে ৭টি ধাপে ভোটগ্রহণ করা হবে ১৯ মে পর্যন্ত। ভোটগণনা করে ফলাফল ঘোষণা করা হবে আগামী ২৩ মে। ইতোমধ্যে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। গত রোববার বিকেলে ভারতের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরা লোকসভার ৫৪৩টি আসনের নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করেন। ফলে ভোটের তোড়জোড় শুরু হয়েছে ভারতের রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে।

এই লোকসভা ভোটের আগে দলের কর্মীদের চাঙ্গা করতে ইতোমধ্যে রাজনীতিতে নেমেছেন ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের অন্যতম পোস্টারমুখ প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। তাই গোটা ভারতের নজর এখন তাঁর ওপর। কোন কেন্দ্র থেকে তিনি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন, তা নিয়ে চলছে জোর জল্পনা-কল্পনা, রাজনৈতিকমহলে।

কিন্তু কলকাতা ২৪x৭ কংগ্রেস সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে বলছে, ে লড়বেন না । কংগ্রেস সূত্রের বক্তব্য তুলে ধরে তারা বলছে, প্রিয়াঙ্কার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করার কারণ হচ্ছে-সারা ভারতে কংগ্রেসের ভোটের প্রচারে নামবেন তিনি। ভারতজুড়ে কংগ্রেসিরা প্রিয়াঙ্কার দিকে চেয়ে আছেন। তিনিই এবার কংগ্রেসের ভোটের প্রচারে অন্যতম শক্তি।

ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল এনডিটিভির অনলাইন প্রতিবেদনেও বলা হয়েছে, ভারতের আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক ও দলটির সভাপতি রাহুল গান্ধীর বোন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন না বলে জানা গেছে। কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ভোটের মাঠে দলীয় প্রচারে মনযোগ দেওয়ার কারণে তিনি এমন সিদ্ধাস্ত নিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি দলের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পেলেও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী গত এক দশকের বেশি সময় ধরে উত্তর প্রদেশের আমেথি ও রায়বারিলির সংসদীয় আসনে মা সোনিয়া গান্ধী ও ভাই কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর হয়ে নির্বাচনী প্রচারণার কাজ করে যাচ্ছেন।

কিন্তু চলতি বছর ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণা করা হয়। আর তাঁর দলে যোগ দেওয়ার প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই শোনা গিয়েছিল তিনি নাকি লোকসভা কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হবেন। সম্ভাব্য আসন হিসেবে উঠে আসছিল রায়বেরেলীর কথা। বর্তমানে মা সোনিয়া এই কেন্দ্রের সাংসদ। লোকসভা নির্বাচনে সোনিয়া গান্ধী প্রার্থী হবেন না বলে গুঞ্জন তৈরি হয়েছিল।

ফলে সেই কেন্দ্র থেকেই প্রিয়াঙ্কা প্রার্থী হতে পারেন বলে তৈরি হয়েছিল জোর গুঞ্জন। কিন্তু কংগ্রেস যে প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায় সোনিয়া গান্ধী ভোটে লড়ছেন। এমনকি রায়বেরেলি কেন্দ্র থেকেই লড়ছেন। ফলে ফের প্রিয়াঙ্কার লোকসভা আসন নিয়ে তৈরি হয় জল্পনা।

ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল এনডিটিভির অনলাইন প্রতিবেদনে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্রের বরাত দিয়ে আজ ১৩ মার্চ বুধবার জানানো হয়েছে, ভোটের প্রচারে মনযোগী হতে এবং দলের নতুন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিজের দায়িত্ব বুঝে নিতে এবারের নির্বাচনে অংশ নেবেন না প্রিয়াঙ্কা। দল যাতে লোকসভা নির্বাচনে ভালো ফল করে, সেটা নিশ্চিত করতেই প্রিয়াঙ্কা এই পথ অনুসরণ করতে চলেছেন বলে কংগ্রেস সূত্রে খবর।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, ‘তিনি (প্রিয়াঙ্কা গান্ধী) ভোটের প্রচারে সক্রিয় ভূমিকা পালন করবেন এবং তার মা-ভাইকে সাহায্য করবেন। একইসঙ্গে তিনি কংগ্রেসের অন্যান্য প্রার্থীদেরও সাহায্য করবেন।’ নিজের দায়িত্বের মধ্যে পড়া উত্তরপ্রদেশের পূর্ব অংশের আসনগুলোতে কংগ্রেসের প্রার্থীকে জিতিয়ে আনার কাজও প্রিয়াঙ্কা করবেন। গত জানুয়ারি মাসে দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণা হয়ে যায়।

এদিকে দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে রোড শো থেকে শুরু করে বৈঠক সবই করে চলেছেন প্রিয়াঙ্কা। মাত্র একদিন আগে গুজরাটের আমদেবাদে গিয়ে কংগ্রেসের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে ভাষণও দিয়েছেন তিনি। সেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে বাক্য বাণে বিদ্ধ করেছেন প্রিয়াঙ্কা। কিন্তু দাদার সঙ্গে প্রচারের সময় শ্রোতার ভূমিকাই পালন করেছেন তিনি।

দীর্ঘ দিন ধরেই প্রিয়াঙ্কাকে দলে নিয়ে এসে রাজনীতিতে সক্রিয় করার দাবি তুলেছেন কংগ্রেস কর্মীদের একটা বড় অংশ। পাশাপাশি তাঁকে ভোটে দাঁড় করানোর দাবিও উঠেছে। কিন্তু এখনই তা পূরণ হওয়ার সম্ভবনা দেখা যাচ্ছে না। এখন দেখা যাক, নেহরু-গান্ধী ডাইনেস্টির জনপ্রিয় উত্তরাধিকার প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভোটের প্রচারে নেমে কংগ্রেসের নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা কতটা পূরণ করতে পারেন।

Print Friendly, PDF & Email

Related posts