বাঙালিনিউজ
কায়লি নামের ১৬ বছরের এক তরুণ কম্পিউটারে ভিডিও গেম খেলার প্রতিযোগিতায় জিতে ২ কোটি টাকার পুরস্কার লাভের রেকর্ড গড়েছে। ছবি: সংগৃহীত

বাঙালিনিউজ
ক্রীড়াডেস্ক

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ১৬ বছরের এক তরুণ কম্পিউটারে ভিডিও গেম খেলার প্রতিযোগিতায় জিতে ২ কোটি টাকার পুরস্কার লাভের রেকর্ড গড়েছেন। কায়লি নামে ওই ১৬ বছরের তরুণকে নিউইয়র্কে আথার্র অ্যাশ স্টেডিয়াম এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। ওই স্টেডিয়ামে সাধারণত ইউএস ওপেন টেনিস টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়ে থাকে।

বাংলাদেশ প্রতিদিন আজ ৩০ জুলাই ২০১৯ মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে জানায়, এই প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন জের্ডন অ্যাশম্যান। তিনি পেয়েছে প্রায় দেড় কোটি টাকার পুরস্কার।

এই খেলায় ফাইনাল রাউন্ডে প্রায় ১০০ জন অংশ নিয়েছিলেন। ১০ সপ্তাহ ধরে চলা এই প্রতিযোগিতায় বিশ্বের ৩০টি দেশের ৪ কোটি খেলোয়াড় কোয়ালিফায়িং রাউন্ডে অংশগ্রহণ করেছিলেন। প্রথমবার অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতায় খরচ হয়েছে প্রায় ৭০০ কোটি টাকা।

এর আগে ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ পত্রিকায় একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। গত ৬ এপ্রিল ২০১৯, স্টুডেন্ট জার্নাল জানিয়েছে, মাত্র ১৪ বছরের এক কিশোর শুধু ভিডিও গেম খেলে প্রায় ২ কোটি টাকা (এক কোটি ৮৮ লাখ ৭ হাজার ৩০০ টাকা প্রায়) আয় করেছে।

‘ওয়াশিংটন পোস্ট’-এ প্রকাশিত ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, কিশোরের নাম গ্রিফিন স্পাইকোস্কি। জানা গিয়েছে, ১৪ বছর বয়সী এই মার্কিন কিশোর দিনে প্রায় ১৮ ঘণ্টা সময় অনলাইন ভিডিও গেমে ব্যয় করে। এ ছাড়াও, অনলাইন গেমের ভিডিও করে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে নিয়মিত পোস্ট করে সে।


১৪ বছর বয়সী এই মার্কিন কিশোর ভিডিও গেম খেলে প্রায় ২ কোটি টাকা (এক কোটি ৮৮ লাখ ৭ হাজার ৩০০ টাকা প্রায়) আয় করেছে। ছবি: সংগৃহীত

গ্রিফিনের ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবারের সংখ্যা ১২ লক্ষেরও (১.২ মিলিয়ন) বেশি আর মোট ভিউ-এর সংখ্যা ৭ কোটি ১০ লক্ষেরও (৭১ মিলিয়ন) বেশি। নিজের ইউটিউব চ্যানেল আর অনলাইন গেমের পুরস্কার মূল্য মিলিয়ে ২০১৮ সালে গ্রিফিনের মোট আয় ২ লক্ষ মার্কিন ডলার।

গত ১০ এপ্রিল আরটিভি জানায়, ডেইলি মেইলের এক খবরে বলা হয় গ্রিফিন নামের ওই কিশোর জানিয়েছে, নয় মাস আগে এই ঘটনা ঘটেছে। গ্রিফিন জানায়, একজন সুপরিচিত ফোর্টনাইট গেমারকে হারানোর একটি ভিডিও ইউটউবে আপলোড করলে সেটির ভিউ ৭৫ লাখ হবার পর সে এই অর্থ আয় করে।

নিউ ইয়র্কের স্মিথটাউনের বাসিন্দা গ্রিফিন সপ্তাহে একদিনে আট ঘণ্টা ফোর্টনাইট গেম খেলে। স্থানীয় গণমাধ্যমে গ্রিফিন জানায়, অনলাইনে স্কুলের কোর্স করার পর সে এই গেম খেলে। তবে কখনও কখনও একদিনে আঠারো ঘণ্টা পর্যন্ত ভিডিও গেম খেলে সে। এটি যে মাত্রাতিরিক্ত তাও স্বীকার করেছে গ্রিফিন।

গণমাধ্যমকে গ্রিফিন জানায়, এটা আমার চাকরির মতো। নিজের ইউটিউব চ্যানেলের জন্য গ্রিফিন এখন একজন সেলিব্রেটির মতো। স্কেপ্টিক নামে গেম খেলা গ্রিফিনের খেলা দেখতে দর্শকরা তার চ্যানেলে টিউন করে। এভাবে সাবস্ক্রাইবারদের ডোনেশন, অনলাইন বিজ্ঞাপন ও স্পন্সরশিপ থেকে টাকা আয় করেছে গ্রিফিন।

এদিকে গ্রিফিনকে সাহায্য করতে একটি কোম্পানিও খুলে দিয়েছে তার বাবা-মা। এমনকি তার আর্থিক বিষয় দেখভালের জন্য একজন অর্থনৈতিক উপদেষ্টাও নিয়োগ দিয়েছেন তারা। গ্রিফিনের বাবা ক্রিস স্পাইকোস্কি বলেছেন, আমি বাবা-মায়েদের বলতে চাই যদি আপনার সন্তান গেম খেলে আনন্দিত হয় এবং যদি তারা গেম খেলায় ভালো হয়; তাহলে এটিকে অন্যান্য খেলাধূলার মতো একটি খেলা ভাবা উচিত। নিজের আয় করা অর্থ দিয়ে ভবিষ্যতে পড়াশোনা করবে বা একটি বাড়ি কিনবে বলে জানিয়েছে গ্রিফিন।

সম্প্রতি ইউটিউবে একটি সাক্ষাৎকারে গ্রিফিনের মা ক্যাথলিন কনলি জানান, ছেলের এই সাফল্য তাঁকে অবাক করে দিয়েছে। তিনি বুঝে গিয়েছেন, অনলাইন গেমের দুনিয়ায় গ্রিফিন আরও উন্নতি করবে।

গ্রিফিনের মতো অনেকেই অর্থ উপার্জনের বিকল্প পথ হিসাবে বেছে নিয়েছেন বিভিন্ন অনলাইন গেমিং প্লাটফর্ম। তবে অনলাইন গেমের প্রতি লক্ষ্যহীন অংশগ্রহণ, মাত্রাতিরিক্ত আসক্তি আমাদের চিন্তাশক্তি নষ্ট করে দিতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অনেক মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ও চিকিৎসক।

Print Friendly, PDF & Email