বাঙালিনিউজ
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ফটো

বাঙালিনিউজ
জাতীয়ডেস্ক

বিশ্বের ২৬তম ক্ষমতাধর নারী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৮ সালে বিশ্বের যে ১০০ প্রভাবশালী নারী ব্যক্তিত্বের তালিকা প্রকাশ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত ব্যবসায়িক সাময়িকী ফোবর্স, সেই তালিকায় এবার শেখ হাসিনা ২৬তম অবস্থানে উঠে এসেছেন।

গত বছর ২০১৭ সালে ফোবর্সের তালিকায় শেখ হাসিনার অবস্থান ছিল ৩০। এবার চার ধাপ উপরে উঠে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৬ সালের তালিকায় তিনি ছিলেন ৩৬তম অবস্থানে। ২০১৫ সালের তালিকায় তার অবস্থান ছিল ৫৯তম। অর্থাৎ ধারাবাহিকভাবে প্রতিবছর শেখ হাসিনার উন্নতি ঘটেছে। ফোবর্স প্রতি বছরই এই তালিকা প্রকাশ করে থাকে। গতকাল ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার বিশ্বের ১০০ প্রভাবশালী নারীর তালিকা প্রকাশ করে ফোর্বস ম্যাগাজিন।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের সাময়িকী ফরচুনের করা বিশ্বের প্রভাবশালী শীর্ষনেতাদের তালিকায় স্থান পেয়েছিলেন শেখ হাসিনা। প্রভাবশালীদের তালিকায় তাকে রেখেছিল টাইম ম্যাগাজিনও।

ফোর্বস ম্যাগাজিনের করা প্রভাবশালী নারীর তালিকায় ধারাবাহিক উন্নতি ঘটেছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। ২০১৮ সালের তালিকায় চার ধাপ এগিয়ে এবার শেখ হাসিনার অবস্থান ২৬ নম্বরে।

এ বছরের শীর্ষ ১০০ ক্ষমতাধর নারীর তালিকা সম্পর্কে ফোর্বসের দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ক্ষমতা কাঠামোর পরিবর্তন ও তার দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা নারীরা এ বছর ১০০ ক্ষমতাধর নারীর তালিকায় স্থান পেয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে দশম জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের মাধ্যমে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ১০ বছর ধরে এই দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে, ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত ৫ বছর তিনি প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। ১৯৮১ সাল থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতির দ্বায়িত্ব পালন করে আসছেন তিনি। গত বছরের আগস্ট থেকে এখন পর্যন্ত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দেওয়া ও তাদের শান্তিপূর্ণ প্রত্যাবাসনে তার ভূমিকার প্রশংসা করেছে ফোর্বস।

বাঙালিনিউজ

ফোর্বসের তালিকায় শেখ হাসিনার এবার আরো উপরে স্থান দেয়ার ক্ষেত্রে মিয়ানমারের বাস্তচ্যুত লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নেয়া হয়েছে। ফোর্বস সাময়িকী শেখ হাসিনার পরিচয় ও অবদান উল্লেখ করতে গিয়ে লিখেছে, ২০১৭ সালে শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় ও তাদের জন্য বাংলাদেশের দুই হাজার একর জমি বরাদ্দ দিয়েছেন। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে প্রাণে বাঁচতে এই রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। এ ছাড়া বাংলাদেশ স্থায়ীভাবে রোহিঙ্গাদের শান্তিপূর্ণ প্রত্যাবাসনে কাজ করে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা।

দুই বছর আগে এই ফোর্বসের তালিকায় মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি ২৬তম অবস্থানে ছিলেন। গত বছর তার অবস্থান সাত ধাপ পিছিয়ে যায়। এবার শেখ হাসিনা ২৬তম স্থানে উঠে এসেছেন, কিন্তু সু চির স্থান হয়নি ১০০ জনের মধ্যেও। ২০০৪ সালের পর এই প্রথম তালিকায় স্থান পাননি যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনও।

এবারও ফোবর্সের তালিকায় শীর্ষস্থান, অর্থাৎ এক নম্বর ক্ষমতাবান নারীর স্থানটি ধরে রেখেছেন জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল। ২০১১ সাল থেকে গত ৮ বছর ধরে তিনি শীর্ষস্থানে রয়েছেন। মাঝে ২০১০ সাল বাদে ২০০৬ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত শীর্ষস্থানটি তারই ছিল।

বাঙালিনিউজ

এবার মার্কেলের পরের অবস্থানে অর্থাৎ দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিসা মে। তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছেন আইএমএফ ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্রিস্টিন লগার্ড। চতুর্থ স্থানে রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের জেনারেল মটরসের চেয়ারপারসন ও সিইও মেরি বারা। পঞ্চম স্থানে রয়েছেন ফিডেলিটি ইনভেস্টমেন্টসের সিইও আবিগেইল জনসন এবং বিল গেটসের স্ত্রী মেলিন্ডা গেটস রয়েছেন ষষ্ঠ স্থানে।

এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন উপস্থাপক অপরাহ উইনফ্রে ২০তম, কুইন এলিজাবেথ (দ্বিতীয়) ২৩তম। ৯২ বছর বয়সী রানি তালিকার সবচেয়ে বেশি বয়সী। তার পরের স্থান দখল করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বড় মেয়ে ও উপদেষ্টা ইভানকা ট্রাম্প। ইভাংকা ট্রাম্প রয়েছেন তালিকার ২৪তম স্থানে। সম্প্রতি মা হওয়া নিউজিল্যান্ডের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন আছেন তালিকার ২৯তম স্থানে।

প্রভাবশালীদের এই তালিকায় হলিউডের এই সময়ের সবচেয়ে দামি অভিনেত্রী টেইলর সুইফট রয়েছেন ৬৮তম স্থানে। তালিকার সবচেয়ে কমবয়সীও তিনি। এছাড়া বলিউড তারকা প্রিয়াংকা চোপড়া আছেন ৯৪তম স্থানে। টেনিস তারকা সেরেনা উইলিয়াম রয়েছেন ৭৯তম স্থানে। সূত্র: অনলাইন নিউজ।

Print Friendly, PDF & Email