বাঙালিনিউজ

বাঙালিনিউজ
জাতীয়ডেস্ক

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, “মানবতা আর শুভ শক্তির জয় হবেই। বিশ্ব আজ অনেক প্রত্যাশা নিয়ে তাকিয়ে আছে আমাদের দিকে, এই উদীয়মান এশিয়ার দিকে। উদ্ভাবনে, অনুপ্রেরণায় বিশ্বকে শান্তি আর সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে এশিয়াকেই নেতৃত্ব দিতে হবে।”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাণিজ্যযুদ্ধের উত্তেজনা প্রশমিত করে এশিয়ার দেশগুলো কীভাবে ঐক্যবদ্ধভাবে সমৃদ্ধির পথে অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে পারে, সেই পথ খুজতে হবে। একই সঙ্গে তিনি আজ ৩০ মে ২০১৯ বৃহস্পতিবার সকালে টোকিওতে ‘দ্য ফিউচার অব এশিয়া’ সম্মেলনে নানা চ্যালেঞ্জ ও সংঘাতে জর্জরিত বর্তমান বিশ্ব কাঠামোতে কীভাবে শান্তি, স্থিতিশীলতা এবং সমতার ভিত্তিতে উন্নয়নের পথে বিশ্বকে এগিয়ে নেওয়া যায়, সে বিষয়ে নিজের চিন্তা-ভাবনা তুলে ধরেন।

জাপানের টোকিওতে ইম্পেরিয়াল হোটেলে এই ‘দ্য ফিউচার অব এশিয়া’ শীর্ষক এই সম্মেলন উদ্বোধন করা হয়। এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনেতা, রাজনীতিবিদ, অর্থনীতিবিদ, গবেষক ও তাত্ত্বিকরা সম্মেলনে যোগ দেন। জাপানি সম্প্রচারমাধ্যম নিকেই এই সম্মেলনের আয়োজন করেছে। এশিয়ার সম্ভাবনা ও উত্থান নিয়ে এই সম্মেলনকে এশিয়ার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক সম্মেলন হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়াও জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে, ‘আধুনিক মালয়েশিয়ার স্থপতি’ হিসেবে পরিচিত দেশটির প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ, কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী হুন সেন এবং ফিলিপিন্সের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতার্তে এই সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন।

শত প্রতিকূলতা পেরিয়ে বাংলাদেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে চলার গল্প সম্মেলনে তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, এশিয়ার দেশগুলো দীর্ঘদিন ধরে বাণিজ্য উদারীকরণের নীতি সমর্থন করে এলেও, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে সংরক্ষণমূলক বাণিজ্যনীতির বাধা ক্রমশ বাড়ছে। বিভিন্ন দেশের ওই সংরক্ষণমূলক বাণিজ্যনীতি বিশ্বে বাণিজ্যযুদ্ধের উসকানি দিচ্ছে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেন, “অর্থনীতির সহজ কথা হলো, শুল্ক যদি বাড়ে তাহলে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হার কমবে। আমি আশা করি, বহুপক্ষীয় ব্যবস্থার মধ্যে সংরক্ষণমূলক বাণিজ্যনীতির প্রবণতা কমিয়ে আনতে কী করা যায় এবং এক্ষেত্রে এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা কীভাবে আরও বাড়ানো যায়- সেই পথনির্দেশ এই ফোরাম থেকে উঠে আসবে।”

এ বিষয়ে শেখ হাসিনা তার ভাবনার কথা তুলে ধরে সম্মেলনে বলেন, “আজকের বিশ্ব নানাভাবে চ্যালেঞ্জ ও সংঘাতের মুখোমুখি। বিশ্বকে আরও উন্মুক্ত করতে, ঐক্যের বন্ধন আরও মজবুত করার অঙ্গীকার নিয়ে আমাদের এগিয়ে আসতে হবে। বিশ্বের সামনে চ্যালেঞ্জগুলো আমাদের মোকাবেলা করতে হবে যৌথভাবে; ন্যায্যতা ও ন্যায়বিচার প্রাপ্তির অধিকার রক্ষা করতে হবে। উদ্ভাবনী ধারণা ও পদক্ষেপ নিয়ে সহযোগিতার ক্ষেত্র আরও বাড়াতে হবে।”

শেখ হাসিনা বলেন, বৃহত্তর ঐক্যের স্বার্থে বিশ্বের শক্তিশালী অর্থনীতির দেশগুলোতে আরও উদ্ভাবনী অনুশীলনের মধ্য দিয়ে যেতে হবে। তিনি বলেন, “সবার জন্য লাভজনক হয়, সব মানুষের যাতে মঙ্গল হয়- তেমন একটি কৌশল নির্ধারণ করতে হবে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে, যা গড়ে উঠবে পারস্পরিক আস্থা ও সম্মান এবং ঐক্যবদ্ধ উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির চেতনা নিয়ে।”

সেজন্য উদার, অন্তর্ভুক্তিমূলক, সমতাভিত্তিক, অংশীদারিত্বমূলক যৌথ উন্নয়নের চেতনা নিয়ে এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে যোগাযোগ ও সহযোগিতা বাড়ানোর ওপর জোর দেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, এশিয়ার ভবিষ্যত নির্ভর করছে টেকসই ও সুষম উন্নয়নের উপর, আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলা এবং সবার জন্য লাভজনক একটি ফলপ্রসূ ব্যবস্থা গড়ে তোলার ওপর।

“আমাদের যৌথভাবে উন্নয়ন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে। আমরা বিশ্ব শান্তি ও স্থিতিশীলতা বৃদ্ধির জন্য একটি গ্রুপ হিসাবে একত্রিত হতে পারি, যারা একটি বহুমাত্রিক বিশ্ব ব্যবস্থাকে উৎসাহিত করবে, উন্নয়নশীল দেশগুলোর অধিকার ও স্বার্থ রক্ষা করবে।”

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ সবসময় শান্তি ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে চলার ওপর জোর দিয়েছে, যা থেকে সরাসরি উপকৃত হবে জনগণ।

তিনি বলেন, একটি বহুমা্ত্রিক বিশ্বে বহু-পক্ষীয় সম্পর্ক আরও জোরদার করতে আমরা জাতিসংঘের ব্যবস্থাপনাকে আরও শক্তিশালী করার চেষ্টা চালিয়ে যাব। এশিয়া ও বাইরের অর্থনীতিগুলোর মধ্যে ঘনিষ্ঠ পারস্পরিক নির্ভরতা বৃদ্ধি পেলে সবারই সম্পদের জোগান বাড়বে বলে মত দেন শেখ হাসিনা। তিনি মনে করেন, বাণিজ্যের পাশাপাশি জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মধ্য দিয়েই এটা সম্ভব।

শেখ হাসিনা বলেন, মানুষে মানুষে এই যোগাযোগই পারে বিশ্বজুড়ে শান্তি ও সমৃদ্ধির ভিত্তি স্থাপন করে দিতে। অবকাঠামো, মুক্ত বাণিজ্য এবং উদার বিনিয়োগ নীতিই এশিয়ার বিকাশের ভিত্তি গড়ে দিয়েছে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন আমরা অভূতপূর্ব সম্পদ ও সম্ভাবনার হাতছানি দেখতে পাচ্ছি, যেখানে মানুষের গড় আয়ু বাড়ছে, শিক্ষার সুযোগ আরও উন্মুক্ত হচ্ছে, শিশুমৃত্যুর হার কমে আসছে এবং দারিদ্র্যের হার হ্রাস পাচ্ছে। একসময় এসব কল্পনা করাও কঠিন ছিল।

শেখ হাসিনা বলেন, অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও মানবতার স্বার্থে বাংলাদেশ মিয়ানমার থেকে বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে। এশীয় নেতাদের সামনে এই বিষয়টি তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা শুধু মানবিক আবেদনেই সাড়া দিচ্ছি না; এই সংকট যেন বিশৃঙ্খলা ও আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতার দিকে না যায়, সে বিষয়েও সচেতন রয়েছি। তীব্র উত্তেজনা ও সংকটের মুখেও আমরা এ সমস্যা সমাধানের জন্য সংলাপ ও ঐকমত্য চেয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব সম্প্রদায়ের সদস্য হিসাবে, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি স্থিতিশীল ও টেকসই বিশ্ব ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সব বন্ধু ও অংশীদারদের সঙ্গে কাজ করে যাবে।

শেখ হাসিনা বলেন, মানব সভ্যতাকে যুদ্ধের বিভিষিকার শিকার হতে হয়েছে বহুবার, প্রাকৃতিক দুর্যোগের মোকাবেলা করতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। আমি বিশ্বাস করি, শক্তিশালী, যৌক্তিক ও দায়িত্বশীল নেতৃত্বে দেশে দেশে সহযোগিতা বৃদ্ধির মাধ্যমে সামনের দিনের চ্যালেঞ্জগুলো যদি আমরা মোকাবিলা করতে পারি, তাহলে ভালো ফল পাওয়া যাবে। সূত্র: বিডিনিউজ

Print Friendly, PDF & Email