বাঙালিনিউজ
বিরাট কোহলি, ভারতের জাতীয় দলের অধিনায়ক। ছবি: PUNIT PARANJPE

অমিতাভ ভট্টশালী
বিবিসি বাংলা, কলকাতা

এক ক্রিকেট-প্রেমিক মন্তব্য করেছিলেন, ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের তুলনায় অস্ট্রেলিয়া আর ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানদের খেলা দেখতেই তিনি পছন্দ করেন। তিনি একথাও লিখেছিলেন যে বিরাট একজন ওভাররেটেড খেলোয়াড়, যার ব্যাটিংয়ে কোনও বিশেষত্ব তার নজরে পড়ে না।

মন্তব্যটা পাঠিয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট ক্যাপ্টেন বিরাট কোহলিকে উদ্দেশ্য করে। সেটা পড়েই কোহলি মন্তব্য করে বসেন যে যাদের বিদেশি ব্যাটসম্যানদের পছন্দ, তাদের ভারতে থাকাই উচিত নয়।

তিনি বলেন, “আমার মনে হয় না যে আপনার ভারতে বাস করা উচিত। অন্য কোনও জায়গায় থাকতে পারেন আপনি। আমাদের দেশে থাকবেন অথচ অন্য দেশকে ভালবাসবেন?”

“আমাকে পছন্দ নাই করতে পারেন আপনি, কিন্তু আমাদের দেশে থেকে অন্য কিছুকে পছন্দ করবেন কেন?” তার নিজস্ব অ্যাপে একটি ভিডিওতে এই মন্তব্য করেন বিরাট। এই মন্তব্য সামনে আসার পরেই এ নিয়ে শুরু হয় তুমুল বিতর্ক।

বেশীরভাগ মানুষই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে কোহলির নিন্দা করছেন।
এমন কি কয়েকজন প্রাক্তন ক্রিকেটার এবং জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যের একজন শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তাও এ নিয়ে মুখ খুলেছেন। তবে অনেকে আবার দাঁড়িয়েছেন কোহলির পক্ষেও।

বাঙালিনিউজ
বিরাট কোহলি, ক্রিকেট পিচের লড়াইয়ে। ছবি: VISIONHAUS

জম্মু-কাশ্মীরের আইজি পদে কর্মরত ওই পুলিশ কর্তা বসন্ত রথ কোহলিকে উদ্দেশ্য করে টুইটারে লিখেছেন, “প্রিয় ভিরাট কোহলি। আমি জাভেদ মিয়াদাদকে খুব পছন্দ করি। আপনি দয়া করে ক্রিকেটীয় দেশপ্রেম নিজের কাছেই রাখুন। আর আপনার বিজ্ঞাপনের কন্ট্রাক্টগুলোর দিকে নজর দিন।”

এখনও ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড বা বর্তমান কোনও খেলোয়াড়র এই বিতর্ক নিয়ে মুখ খোলেন নি। তবে জাতীয় দলের প্রাক্তন স্পিনার মনিন্দর সিং বিবিসিকে বলেছেন, “কোহলির বোঝা উচিত ছিল যে এরকম একটা মন্তব্য করলে সমালোচনা হবে। এটা করা উচিত হয় নি। সারা দেশ জানে ও কত বড় খেলোয়াড়, কত মানুষ ওকে পছন্দ করে!”

“প্রচুর পরিশ্রম করে তবেই মানুষ সাফল্য পায়। আর সঙ্গে যদি ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয়, তাহলে সাফল্য দ্বিগুণ হয়ে যায়। ভিরাটের এটাই হয়েছে,” মন্তব্য মনিন্দর সিংয়ের।

আরেক প্রাক্তন ক্রিকেটার অতুল ওয়াসন বলছিলেন, “এটা অপরিণত মন্তব্য। আমি নিজে ক্রিকেটার হয়েও আজহারুদ্দিনের থেকে ডেভিড গাওয়ারকে বেশী ভাল লাগত। যদি ফুটবলে একজনও ভারতীয় খেলোয়াড় আমার পছন্দ না হয়, অন্য কোনও দেশের প্লেয়ারদের ভাল লাগে, তাহলে আমাকে দেশ ছেড়ে চলে যেতে হবে?”

বাঙালিনিউজ
ভারতের রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে পুরষ্কার গ্রহণের এক অনুষ্ঠানে ভিরাট কোহলি। পেছনে তার স্ত্রী আনুস্কা শর্মা। ছবি: HINDUSTAN TIMES

তবে মি. ওয়াসান এটাও বলছেন, “বিরাট তো একজন খেলোয়াড়। রাষ্ট্রপতি বা রাজনৈতিক নেতা তো নন যে তাকে প্রত্যেকটা কথা ভীষণ মেপে বলতে হবে।” না মেপে করা এই মন্তব্যের সূত্রে মহিন্দর সিং ধোনির সঙ্গে তুলনা করা হচ্ছে বর্তমান ক্যাপ্টেনের।

অনেকেই মনে করেন যে এই ধরণের মন্তব্য বিশেষত সংবাদ সম্মেলনগুলোতে খুব ভাল করে সামলাতে পারতেন ধোনি। বিরাটের ওই মন্তব্য নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে জোর সমালোচনা হচ্ছে।

যেমন আশরাফ নামে একজন টুইট ব্যবহারকারী লিখেছেন, “ভিরাট কোহলি বলছেন, যারা বিদেশি খেলোয়াড়দের পছন্দ করেন, তাঁরা যেন ভারতে না থাকেন। ঘটনা হল যে তিনি কিন্তু বিদেশে গিয়ে বিয়ে করেছেন, সেটা হল ইতালি।”

“আর তিনি যেসব ব্র্যান্ডের বিজ্ঞাপন করে থাকেন, তার মধ্যে রয়েছে আউডি, পুমা বা পেপসির মতো বিদেশি ব্র্যান্ড।”

সিদ্ধার্থ ভিশি নামে আরেকজন টুইট করেছেন, “কোহলির সাম্প্রতিক মন্তব্যটা খেলার জগতের মূল ভাবনার বিরোধী। খেলাধুলো হল সেরা পারফর্মারদের জন্য গলা ফাটিয়ে সমর্থন করা, সে যে দেশেরই খেলোয়াড় হোক না কেন।”

আয়রনি অফ ইন্ডিয়া নামের আরেকজন টুইট-বার্তাতেই মনে করিয়ে দিয়েছেন যে ভিরাট কোহলিই ২০০৮ সালে বলেছিলেন যে তাঁর পছন্দের সেরা ক্রিকেটার হলেন হার্শাল গিবস। অথচ সেই কোহলিই ২০১৮ সালে বলছেন, ভারতীয় খেলোয়াড়দের পছন্দ না হলে দেশ ছেড়ে চলে যেতে হবে। সূত্র: বিবিসি বাংলা। প্রকাশের তারিখ: ০৮ নভেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার।

Print Friendly, PDF & Email