বাঙালিনিউজ
তারকা শিল্পীদের মধ্যে একমাত্র সুবর্ণা মুস্তফাকেই আওয়ামী লীগ একাদশ জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়ন দিয়েছে।

বাঙালিনিউজ
বিনোদন প্রতিবেদক

ের প্রার্থী হিসেবে জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসনে মনোনীত হওয়ার পর সুবর্ণা মুস্তাফা  বলেছেন, ‘প্রথমেই আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি, আমাকে মনোনীত করার জন্য। আমার জন্য এটি একেবারেই নতুন একটি জায়গা। আমি আমার দেশকে অনেক ভালোবাসি। দেশের ঊর্ধ্বে আর কোনো কিছুই নেই আমার কাছে। যারা বাংলাদেশকে বিশ্বাস করে না-তারা আমার শত্রু, আমাদের শত্রু।’

গতকাল ০৯ ফেব্রুয়ারি শনিবার  মিডিয়াকে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, আমি বিশ্বাস করি যেহেতু এটা আমার জন্য একেবারেই নতুন একটি জায়গা, তাই আমি চাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে দিকনির্দেশনা দিয়ে এগিয়ে যেতে সহযোগিতা করবেন। তিনি যেভাবে দিকনির্দেশনা দেবেন, আমি সেভাবেই নিজেকে এগিয়ে নিয়ে যেতে প্রস্তুত। আমাকে যখন যে কাজই দেওয়া হয়েছে, আমি শতভাগ দায়িত্ব নিয়ে করার চেষ্টা করেছি।

অভিনেত্রী সুবর্ণা বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাকে যে দায়িত্ব দেবেন সেটাও আমি শতভাগই পালন করার চেষ্টা করব। সফলতার সঙ্গে সেই কাজ করার চেষ্টা থাকবে আমার। সুবর্ণা মুস্তাফার ইচ্ছা রয়েছে নারী শিশু অধিকার নিয়ে কাজ করার। এর পাশাপাশি বাংলাদেশের সংস্কৃতি অঙ্গনের যে সুবর্ণ সময় ছিল তা উত্তরণের। তবে যদি তার ওপর সে ধরনের দায়িত্ব দেওয়া হয়, তবে তিনি তা করতে শতভাগ চেষ্টা করবেন। সুবর্ণা বলেন, একজন সাংসদ হিসেবে তার জীবনের নতুন যাত্রা শুরু হলেও, তার চলমান স্বাভাবিক জীবনযাত্রা বজায় থাকবে।

সুবর্ণা মুস্তাফা বলেন, ‘আমি সবসময়ই খুব সাধারণ এবং স্বাভাবিক জীবনযাপন করার চেষ্টা করি। আমি সবসময়ই সাধারণ মানুষের সঙ্গে কানেক্টেড থাকার চেষ্টা করি। ছাত্র জীবন থেকেই আমি তা করে আসছি। তাই আগামী দিনগুলোও আমি এভাবেই থাকতে চাই।’ উল্লেখ্য, ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আগের দিন আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি সুবর্ণা মুস্তাফা একুশে পদক গ্রহণ করবেন।

বাঙালিনিউজ

ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ের সংরক্ষিত নারী আসনের জন্য ৪৩ জন দলীয় প্রার্থীর মনোনয়ন চূড়ান্ত করেছে। গত ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ শুক্রবার গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ড ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের এক সভায় ৪১ জন প্রার্থী চূড়ান্ত করার পর তা প্রকাশ করা হয়েছে।

গত শুক্রবার রাতে মনোনয়ন বোর্ডের সভা শেষে ৪১ জন প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তাদের মধ্যে জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সুবর্ণা মুস্তাফা ঢাকা আসন থেকে চূড়ান্তভাবে মনোনীত হয়েছেন। উল্লেখ্য, আজ ১০ ফেব্রুয়ারি আরো ২ জন মনোনীত প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

তারকা শিল্পীদের মধ্যে একমাত্র সুবর্ণা মুস্তফাকেই আওয়ামী লীগ সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়ন দিয়েছে। অথচ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের জন্য এবার দেশের শোবিজ অঙ্গনের ২০ জনেরও বেশি তারকা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন।

এই তালিকায় ছিলেন সাবেক সাংসদ কবরী সারোয়ার, সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী ও অভিনেত্রী তারানা হালিম, অভিনেত্রী সুজাতা, ফাল্গুনী হামিদ, রোকেয়া প্রাচী, শমী কায়সার, নুজহাত চৌধুরী, চিত্রনায়িকা নূতন, অঞ্জনা সুলতানা, নিপুণ, মৌসুমী, অপু বিশ্বাস, অরুণা বিশ্বাস, তারিন জাহান, শাহানুর, জ্যোতিকা জ্যোতি, মিষ্টি জান্নাত ও কণ্ঠশিল্পী সুমি আক্তারসহ অনেকে। সেলিব্রেটিদের লম্বা এই তালিকা থেকে হওয়ার দৌড়ে জয়লাভ করেছেন সুবর্ণা মুস্তাফা।

বাঙালিনিউজ

সফল অভিনেত্রী ও প্রযোজক সুবর্ণা মুস্তাফা অভিনয়ে বিশেষ অবদান রাখার জন্য গত ৬ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রের অন্যতম শীর্ষ মর্যাদা একুশে পদকে ভূষিত হয়েছেন। তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে অভিনয় জগতে আছেন নন্দিত এই অভিনেত্রী। বাংলাদেশের নাট্যজগতে তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয়। আশির দশকে ছিলেন দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় টিভি অভিনেত্রী। বিশেষ করে আফজাল হোসেন, হুমায়ুন ফরীদি ও আসাদুজ্জামান নূরের সঙ্গে তার জুটি ব্যাপক দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছিল। সেইসাথে হুমায়ূন আহমেদের নাটক ও চলচ্চিত্রে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে কাজ করে সুবর্ণা পৌঁছে যান সব শ্রেণি-পেশার দর্শকের কাছে।

প্রখ্যাত অভিনেতা গোলাম মুস্তাফার মেয়ে সুবর্ণা মুস্তাফা ১৯৫৯ সালের ২ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তিনি পড়াশোনা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে। আসাদুজ্জামান নূর অভিনীত বাকের ভাইয়ের নায়িকা ‘মুনা’ চরিত্রে অভিনয় করেন সুবর্ণা। বেশ প্রশংসা পেয়েছেন তিনি। তারপর নিয়মিত হুমায়ূন আহমেদের নাটকে কাজ করেছেন সুবর্ণা। দারুণ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল তার অভিনীত ‘আজ রবিবার’ নাটকটি।

হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত মুস্তাফিজুর রহমানের ‘শঙ্খনীল কারাগার’ সিনেমায় অভিনয় করেও দর্শক হৃদয় জয় করেন সুবর্ণা মুস্তাফা। ছবিটি ১৯৯২ সালে মুক্তি পায়। তবে চলচ্চিত্রে সুবর্ণার অভিষেক হয় ১৯৮০ সালে, সৈয়দ সালাউদ্দিন জাকী পরিচালিত ‘ঘুড্ডি’ ছবির মাধ্যমে। নাটকের পাশাপাশি চলচ্চিত্রে সাফল্য পেলেও তিনি বেছে বেছে অভিনয় করেন। কিছু জীবন ঘনিষ্ঠ চলচ্চিত্রে তিনি অভিনয় করেছেন।

মূলধারার কিছু ছবিতে জনপ্রিয় অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তফার উপস্থিতি লক্ষ্যণীয়। ‘নয়নের আলো’ সিনেমায় তার অভিনয় সব শ্রেণির দর্শককে মুগ্ধ করেছে। ১৯৮৩ সালে ‘নতুন বউ’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করে তিনি শ্রেষ্ঠ সহ-অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেছেন। কোনো মানহীন চলচ্চিত্রে অভিনয় করেননি সুবর্ণা।

Print Friendly, PDF & Email

Related posts