বাঙালিনিউজ
প্রতীকী ছবি।

বাঙালিনিউজ
মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি

গতকাল ১৩ আগস্ট ২০১৯ মঙ্গলবার সকালে, মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে পদ্মায় সি-বোট উল্টে দীন ইসলাম হোসেন রনি (৮) নামে এক শিশু নিখোঁজ হয়েছে। জানা গেছে, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে শিমুলিয়া ঘাট থেকে কাঁঠালবাড়ী ঘাট যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

মাওয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম মিডিয়াকে জানান, সি-বোটটি ১৯ জন যাত্রী নিয়ে শিমুলিয়া ঘাট থেকে কাঁঠালবাড়ী ঘাট যাচ্ছিল। পথে পদ্মা নদীর মাঝে প্রচণ্ড বাতাসে সি-বোটটি উল্টে যায়। এতে দীন ইসলাম রনি নামের ৮ বছরের একটি শিশু নদীতে পড়ে নিখোঁজ হয়। বাকি যাত্রীদের উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কাবিরুল ইসলাম মিডিয়াকে জানান, মাঝ পদ্মায় ঝড়ের কবলে পড়ে প্রচণ্ড বাতাসে সি-বোটটি উল্টে যায়। নিকটবর্তী একটি খালি সি-বোটের মাধ্যমে যাত্রীদের সরিয়ে নেওয়া হয়। এ ঘটনায় একটি শিশু নিখোঁজ আছে।

তিনি মিডিয়াকে আরও জানান, সি-বোট ডুবিতে নিখোঁজ রনির সন্ধান পাওয়া যায়নি। কোস্টগার্ড, নৌ-পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরীদল ও পদ্মাসেতুর সেনাবাহিনীর সদস্যরা উদ্ধার কাজে অংশ নেয়। মঙ্গলবার সকাল থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত ঘটনাস্থলে উদ্ধার কাজ পরিচালনা করেও খোঁজ পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, নদীতে পড়ে যাওয়ার পর রনি চিৎকার করে, ‘বাবা আমাকে বাঁচাও’। এরপর সে ডুবে যায়। রনি লাইফ জ্যাকেট পড়া ছিল, কিন্তু এরপরও তাকে পাওয়া যায়নি।

ঢাকার মিরপুর থেকে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র রনি তার বাবা ও বোনের সঙ্গে বেড়াতে যাচ্ছিল দাদাবাড়ি বরিশালে। দাদাবাড়িতে ঈদ উদযাপন করার কথা ছিল তাদের। কিন্তু পথিমধ্যে পদ্মায় সি-বোট ডুবে নিখোঁজ হলো শিশু রনি। জানা যায়, রনি ঢাকার মিরপুর-১২ এর সি ব্লক, রোড -৪, ২০ নম্বর বাসার সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে। তিন বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে মেঝো ছিল রনি।

গতকাল সকাল সাড়ে ৮টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করেও সন্ধান পাওয়া যায়নি। উদ্ধার অভিযান পরিচালনা শেষে মাওয়া কোস্টগার্ডের ইনচার্জ কর্মকর্তা সাইফুল্লাহ বাহার মিডিয়াকে জানান, অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পাওয়া যায়নি নিখোঁজ রনিকে। বুধবার (আজ ১৪ আগস্ট) সকাল থেকে আবার উদ্ধার অভিযান শুরু হওয়ার কথা।

Print Friendly, PDF & Email