বাঙালিনিউজ
কোম্পানিটির প্রচারণা। ছবি: TATPROF

বাঙালিনিউজ
আন্তর্জাতিকডেস্ক

রাশিয়ার একটি কোম্পানি নারী কর্মীদের স্কার্ট পরা নিয়ে এক অভিনব অফার দিয়েছে। আর তাই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিতর্ক শুরু হয়েছে। আর নারীবাদীরা ভিষণ চটেছেন। তবে কোম্পানিটিও তাদের পক্ষে যুক্তি দিয়ে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেভ

কাজের ক্ষেত্রে স্কার্ট পরেই আসুক নারী কর্মীরা-এজন্য নারী কর্মীদের বোনাস হিসেবে নগদ টাকা অফার করছে রাশিয়ার একটি কোম্পানি। আর এ কারণে রীতিমত তোপের মুখে পড়েছে কোম্পানিটি। কারণ, তারা তাদের নারী কর্মীদের কর্মস্থলে স্কার্ট পরতে উৎসাহিত করার চেষ্টা করছে।

টেটপ্রফ নামের এই অ্যালুমিনিয়াম উৎপাদন কোম্পানিটি আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত তাদের ‘ফেমিনিটি ম্যারাথন’ শীর্ষক এই প্রচারণা চলবে। এটি তাদের নারী কর্মীদের স্কার্ট বা এ ধরণের পোশাক পরে অফিস করতে উদ্বুদ্ধ করার প্রচারণা।

কোম্পানিটি বলছে, যেসব নারী কর্মী স্কার্ট পরবে, তাদের তারা নিয়মিত বেতনের বাইরে ১০০ রুবল বা দেড় মার্কিন ডলার করে অতিরিক্ত অর্থ দেবে। স্কার্ট বলতে এখানে হাঁটু থেকে ৫ সেন্টিমিটার উপরে থাকবে, এমন পোশাকের কথা বলছে তারা।

আর বোনাস পেতে হলে অফিসে এসে নিজের একটি ছবি তুলে পাঠাতে হবে কোম্পানিকে। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়েছে। কেউ কেউ একে নারীদের বাজেভাবে উপস্থাপনের অভিযোগ করছেন। সুপরিচিত নারীবাদী ব্লগার ও সাংবাদিক জ্যালিনা মারশেঙ্কুলভাও এ নিয়ে কথা বলেছেন।

তবে সেক্সিজমের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে ওই কোম্পানি, যারা ২০১৪ সালের শীতকালীন অলিম্পিক ও ২০১৮ সালের ফুটবল বিশ্বকাপের মালামাল সরবরাহের কাজ পেয়েছিলো। কোম্পানিটির মুখপাত্র একটি রেডিও স্টেশনকে বলেছেন, “আমরা আমাদের কাজের দিনগুলোকে উজ্জ্বল করতে চাই,” তিনি বলেন, “আমাদের টিমে ৭০ ভাগই পুরুষ। এখানে অনেক নারীই ট্রাউজার পরে আসে। আমরা আশা করছি আমাদের প্রচারণা নারীদের মধ্যে সচেতনতা আনবে, যাতে করে তারা তাদের নারীত্বকে উপভোগ করতে পারে।”

রাশিয়ায় টুইটার খুব একটা প্রভাব বিস্তার করে না। তারপরেও অনেকেই টুইটারে এর সমালোচনা করছেন। একজন লিখেছেন, “খাটো স্কার্ট পরার জন্য ১০০ রুবল বোনাস পেতে যিনি আসবেন, তিনি পুরুষ নিয়ন্ত্রিত টিমকে উজ্জ্বল করবেন।”

তবে কোম্পানির মুখপাত্র বলছেন তাদের সিইও এটি চালু করেছেন যাতে কোম্পানিতে কাজ করার মেয়েরা তাদের মতো করেই অফিস করতে পারে। “তাদের কারও ছেলেদের মতো হেয়ার কাটের বা পোশাক পরার দরকার নেই। তাদের যা ইচ্ছে সেটাই তারা পরতে পরবে।” সূত্র: বিবিসি বাংলা।

Print Friendly, PDF & Email