বাঙালিনিউজ
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জে দুই নৈশপ্রহরীকে কুপিয়ে হত্যা করে ডাকাতরা তিনটি ব্যাটারির দোকান লুট করে ট্রাকে ভরে মালামাল নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ এই ডাকাতির ঘটনা নিশ্চিৎ করে জানিয়েছে, বন্দর উপজেলার ওই তিনটি দোকান থেকে ডাকাতরা ব্যাটারি ও নগদ অর্থ-সহ আনুমানিক প্রায় ২২ লাখ টাকার বিভিন্ন মালামাল নিয়ে গেছে।
পুলিশ জানায়, গতকাল ২০ জুলাই ২০১৮ শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে, দক্ষিণ লক্ষ্মণখোলা এলাকায় মাদ্রাসা মার্কেটে এই ডাকাতির ঘটনা ঘটে। নিহত দুই নৈশপ্রহরী হলেন বন্দর উপজেলার দক্ষিণ লক্ষ্মণখোলা এলাকার বদি মিয়ার ছেলে মোতালেব মিয়া (৫৫) ও মৃত আবদুস সামাদ মৃধার ছেলে রায়হান উদ্দিন (৫৫)।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, রাত সাড়ে তিনটার দিকে বন্দর উপজেলার লক্ষ্মণখোলা এলাকায় একটি মার্কেটের নৈশপ্রহরী রায়হান ও মোতালেবকে মারধর ও পিটিয়ে আহত করে ডাকাতরা। এরপর তারা আমির হোসেন, আলমগীর হোসেন ও আয়নাল হক নামের তিন ব্যক্তির পৃথক তিনটি ব্যাটারির দোকানের তালা ভেঙে, ব্যাটারি ও নগদ অর্থ-সহ বিভিন্ন মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। ওই দোকানগুলোয় গাড়ি, আইপিএস ইত্যাদির ব্যাটারি বিক্রি হয়।

ডাকাতদের হামলায় ঘটনাস্থলেই নৈশপ্রহরী রায়হান উদ্দিনের মৃত্যু হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় অপর নৈশপ্রহরী মোতালেব মিয়াকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

বন্দর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম শাহীন মণ্ডল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, উপজেলার লক্ষণখোলা মাদ্রাসা মার্কেটে ট্রাকযোগে ডাকাতদল ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। একটি ব্যাটারির দোকানে হানা দেয়ার সময় মার্কেটে থাকা দুইজন নৈশপ্রহরী ডাকাতদের বাধা দেয়। তখন ডাকাতরা দুই নৈশপ্রহরীর হাত পা বেঁধে কোপায়।

ওসি বলেন, ডাকাতদের আঘাতে নৈশপ্রহরী রায়হান মিয়া ঘটনাস্থলে মারা যায়। আর মোতালেবকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যায়। তিনি বলেন, ধারণা করা হচ্ছে-ডাকাতরা নৈশপ্রহরী দুজনের মাথায় ইট দিয়ে আঘাত করেছে। এক নৈশপ্রহরীর লাশের পাশে ইট পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

ওসি আরও জানান, ডাকাতরা দুইজন নৈশপ্রহরীকে হত্যা করে মার্কেটে তিনটি দোকান থেকে নগদ অর্থ, ব্যাটারি ও মালামাল নিয়ে গেছে। ঘটনাটি যে ডাকাতরা পরিকল্পিতভাবে ঘটিয়েছে, তার কিছুটা অনুভব করা যাচ্ছে।

ওসি জানান, ডাকাতদের গ্রেপ্তার ও লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। এ ব্যাপারে মামলারও প্রস্তুতি চলছে। ওসি বলেন, ডাকাতরা আনুমানিক ২২ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে গেছে। তবে কত টাকার ব্যাটারি ও মালামাল লুট করেছে ডাকাতরা, তার সঠিক হিসাব বের করা হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email