বাঙালিনিউজ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

গত ১৪ জুলাই ২০১৯ রোববার ভারতের মধ্যপ্রদেশের দামোরের এক হাসপাতালে সাপের কামড়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ২৫ বছর বয়সী এক তরুণীকে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখানেই চিকিৎসা চলছিল তার। কিন্তু বাড়ির মেয়েকে নিয়ে পরিবারের দুশ্চিন্তা তখনও কাটেনি। তাই হাসপাতালের মধ্যেই ওঝা ডেকে শরীরের পোশাক খুলে রীতিমতো ঝাড়ফুঁক চলে।

এ ব্যাপারে ভারতীয় একটি দৈনিক বলছে, মধ্যপ্রদেশের বাটিয়াগড়ের বাসিন্দা ইমারতী দেবী নামের এক তরুণীকে সাপে কেটেছে।

জানা গেছে, আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়। সেই রাতেই হাসপাতাল কর্মীদের নজর এড়িয়ে হাসপাতালের মহিলা ওয়ার্ডে এক ওঝাকে নিয়ে ঢুকে পড়ে ওই তরুণীর পরিবার।

তারপর বেড থেকে তাকে তুলে এনে মাটিতে বসতে বলা হয়। চলে মন্ত্র পাঠ। শুধু তাই নয়, পুরুষদের ওয়ার্ডের সামনে ইমারতীকে পোশাক খুলতে বলা হয়। সুস্থ করে তোলার নাম করে হেনস্তার শিকার হয় এই তরুণী।

এ ঘটনা ধরা পড়ে হাসপাতালের সিসিটিভি ফুটেজে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, সে সময় কর্তব্যরত এক নার্স পুরো ঘটনা দেখেও তা ঠেকানোর চেষ্টা করেননি। তবে এ ব্যাপারে নিরাপত্তারক্ষী এবং অন্যান্য চিকিৎসকরা জানতেন না।

হাসপাতালের সিভিল সার্জন মমতা তিমোরি বলেন, প্রাথমিক তদন্তে নার্স ছাড়া আর কেউ এ বিষয়ে অবগত ছিলেন না বলে জানা গেছে। তবে সেই নার্স সব জেনেও কাউকে খবর দেননি। তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে।

তবে নার্সের দাবি, রোগীর স্বজনদের বোঝানো সত্ত্বেও এ ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি ক্যামেরা বন্দি হলেও সিসিটিভি ফুটেজও চোখ এড়িয়ে যায় কর্তৃপক্ষের।

Print Friendly, PDF & Email