বাঙালিনিউজ

বাঙালিনিউজ
নিজস্ব প্রতিবেদক

আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ বুধবার, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি’র সহযোগী সংগঠন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। জানা গেছে, আজ ১০ আগস্ট ২০১৯ শনিবার অথবা ঈদের পর ১৩ কিংবা ১৪ আগস্ট আনুষ্ঠানিকভাবে ছাত্রদলের কাউন্সিলের দিনক্ষণ ও স্থান জানিয়ে এই কাউন্সিলের নতুন তফসিল ঘোষণা করা হতে পারে।

গতকাল ০৯ আগস্ট শুক্রবার রাতে ছাত্রদলের কাউন্সিলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সংগঠনের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে স্কাইপের মাধ্যমে কথা বলে এ সিদ্ধান্ত দেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। একই সঙ্গে বিলুপ্ত কমিটির ১২ নেতার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত দেন তিনি।

গতকাল ০৯ আগস্ট শুক্রবার রাতে, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি শহীদুল ইসলাম বাবুল মিডিয়াকে জানান, ছাত্রদলের সাবেক নেতাদের সঙ্গে শুক্রবার রাতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের স্কাইপের মাধ্যমে বৈঠক হয়েছে। ওই বৈঠকে ছাত্রদলের কাউন্সিলের নতুন তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। কাউন্সিলে শুধু সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে সরাসরি ভোট হবে।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন জানান, ছাত্রদলের কাউন্সিল ১৪ সেপ্টেম্বর করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এটার অফিশিয়ালি ঘোষণা দেওয়া হবে। ছাত্রদলের যে ১২ জনকে বহিষ্কার করা হয়েছে, তাঁদের বহিষ্কার আদেশও প্রত্যাহার করা হবে। তবে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানাবেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান।

উল্লেখ্য, চলতি বছর ২০১৯ সালের ৩ জুন ছাত্রদলের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়। এরপর ৩০ জুন কাউন্সিলের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ওই তফসিল অনুযায়ী গত ১৫ জুলাই ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছিল। সে সময় বলা হয়েছিল, ২০০০ সালের আগে যাঁরা এসএসসি পাস করেছেন, তাঁরা কাউন্সিলে প্রার্থী হতে পারবেন না।

তখন এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে ছাত্রদলের ‘বয়স্ক’ নেতাদের একাংশ বিদ্রোহ শুরু করেন। বাদ পড়া নেতারা বিএনপির নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে টানা বিক্ষোভ করেন। ফলে ১৫ জুলাই কাউন্সিল করতে ব্যর্থ হন দায়িত্ব পাওয়া নেতারা। ক্ষুব্ধ নেতাদের সঙ্গে সম্প্রতি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান স্কাইপের মাধ্যমে কথা বলে তাঁদের শান্ত করেন।

ক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাদের ক্ষোভ কমাতে বিশেষভাবে কাজ করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।

Print Friendly, PDF & Email