বাঙালিনিউজ ডেস্ক
দিনাজপুর প্রতিনিধি
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মূল অপরাধী হিসেবে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সাক্ষীদের সাক্ষ্যে বেরিয়ে এসেছে খালেদা জিয়া এ ঘটনাটি জানতেন। তিনি ওই সময় এ মামলার তদন্তে বাধা দিয়েছেন।

 

দিনাজপুর জেলার বিরলে মুন্সিপাড়া আদর্শ কলেজের চারতলা নতুন ভবনের উদ্বোধন শেষে কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আলামিনের সভাপতিত্বে উপস্থিত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রওশন কবীর, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ লতিফ, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, পৌর মেয়র সবুজার সিদ্দিক সাগর, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রমা কান্ত রায়, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবুল কাশেম অরু, কলেজের অধ্যক্ষ লাইজুদ্দিন প্রমুখ উপস্থিতিতে সমাবেশে বৃহস্পতিবার তিনি এসব কথা বলেন।
খালিদ মাহমুদ বলেন, একুশে আগস্ট যারা সরাসরি হামলা করেছিলো তাদের নিরাপদে পালিয়ে যাওয়ার পরিবেশ তৈরি করে দিয়েছিলেন খালেদা জিয়া। খালেদা জিয়া তখন শুধু প্রধানমন্ত্রীই ছিলেন না, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্বও  পালন করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে তার যে দায়িত্ব ছিলো তা তিনি পালন করেননি। তিনি তার উল্টোটা করেছিলেন। মামলাতো করতে দেইনি বরং মামলার সকল আলামত নষ্ট করে দিয়েছিলেন। পার্লামেন্টে এ হামলা নিয়ে হাস্যরস করেছিলেন। সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করতে হলে এ মামলায় তার শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।
সুশীল সমাজের কিছু লোকদের সমালোচনা করে খালিদ মাহমুদ বলেন, অনির্বাচিত কেউ বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসবার সুযোগ নেই। তাদের সে রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সেজন্য তারা এখন বিএনপির ঘাড়ে ভর করতে চায়। যারা গ্রেনেড হামলার আসামি তাদের সঙ্গে যারা হাত মিলায় তারাও অপরাধী।

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার বিচারের মধ্য দিয়ে দেশ আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় আরো এক ধাপ এগিয়ে গেছে মন্তব্য করে খালিদ বলেন, বর্তমান সরকার বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার সম্পন্ন করেছে। অথচ বিএনপি এ বিচার যেন করা না যায়; সেজন্য ইনডেমনিটি করেছিল। মুল অপরাধীদের যথোপযুক্ত শাস্তি হয়নি; সেজন্য আমরা মনক্ষুণ্ন তবে দেশ আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় অনেক দূর এগিয়েছে- এটাই আমাদের স্বস্তি।

Print Friendly, PDF & Email