বাঙালিনিউজ
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। ফাইল ফটো

বাঙালিনিউজ
নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, বিএনপির কারাবন্দী চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হবে। এই কারাগারে নারী বন্দীদের যেখানে রাখা হয়, সেখানেই তাঁকে রাখা হবে। আজ ১৪ মে ২০১৯ মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সচিবালয়ে তাঁর দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন।

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন আছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেন, হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তর করা হবে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী আরও বলেন, ‘পুরাতন জেলখানায় যেখানে খালেদা জিয়াকে রাখা হয়েছে, সেই ভবনটি সংস্কার করা হবে। কেরানীগঞ্জ কারাগারে মহিলা বন্দিদের রাখার জন্য যে ওয়ার্ড সেটি প্রস্তুত ছিল না। সে কারণেই তাকে এতদিন পুরাতন জেলখানায় রাখা হয়েছে। কেরানীগঞ্জের মহিলা কারাগার এখন প্রস্তুত। কাজেই তাকে এখন সেখানে রাখা যাবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য সব রকমের চেষ্টাই সরকার করছে। সময়মতো একটি সুসংবাদ পেলেও পেতে পারেন।’

উল্লেখ্য, গত বছর ২০১৮ সালের ০৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজার রায় ঘোষণা হওয়ার পর, খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারে নেয়া হয়।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দুদকের দায়ের করা দুই মামলায় ১০ ও ৭ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন। আপিলে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ড বেড়ে ১০ বছর এবং জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিশেষ আদালতে ৭ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন তিনি।

সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘দক্ষিণখানে মা-ছেলে-মেয়ে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবে এখনও এ হত্যাকাণ্ডের কোনও ক্লু খুঁজে পাওয়া যায়নি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তদন্ত শেষে এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য জানা যাবে।’

Print Friendly, PDF & Email