বাঙালিনিউজ
আজ ১৩ মার্চ ২০১৯ বুধবার সকালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে ইন্টেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) থেকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়েছে।

বাঙালি নিউজ
নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থার আরো উন্নতি হয়েছে। সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এই নেতাকে আজ ১৩ মার্চ ২০১৯ বুধবার সকালে ইন্টেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) থেকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়েছে।

আজ বুধবার সকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) পরিচালক এবং নিওরোলজিস্ট অধ্যাপক ডা. আবু নাসার রিজভী এ তথ্য জানান। তিনি সিঙ্গাপুরে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ের চিকিৎসা সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

অধ্যাপক আবু নাসার রিজভী বলেন, ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা ভালো। আজ সকাল থেকে তাঁকে নরম খাবার দেওয়া হচ্ছে। আগামী সপ্তাহে সুবিধাজনক সময়ে তাঁর বাইপাস সার্জারির প্রস্তুতি নিচ্ছেন চিকিৎসকেরা।

এর আগে কার্ডিও থোরাসিক সার্জন সিবাস্টিন কুমার সামি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসার সর্বশেষ অগ্রগতি পরিবারের সদস্যদের জানান। এ সময় তাঁর স্ত্রী ইসরাতুন্নেসা কাদের ও সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

ওবায়দুল কাদের গত ৩ মার্চ সকালে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি হন। তাঁর হার্টে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে। এর মধ্যে একটি ব্লক স্টেন্টিংয়ের মাধ্যমে অপসারণ করেন চিকিৎসকরা।

তাঁর চিকিৎসা বিষয়ে পরামর্শ দিতে ঢাকায় আসেন ভারতের স্বনামধন্য হৃদ্‌রোগ বিশেষজ্ঞ দেবী শেঠি। অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে কাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ৪ মার্চ ঢাকা থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে সিঙ্গাপুরে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। সেখানে মন্ত্রীর চিকিৎসার জন্য মেডিকেল বোর্ড গঠন করে ওই রাত থেকেই চিকিৎসা চলছে।

৬৭ বছর বয়সী ওবায়দুল কাদের হৃদরোগ, ডায়াবেটিস ছাড়াও শ্বাসতন্ত্রের জটিল রোগ সিওপিডিতে (ক্রনিক অবসট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ) ভুগছেন।

এর আগে দুদফা বলা হয়েছিল ওবায়দুল কাদেরকে কেবিনে নেয়া হতে পারে। কিন্তু তাকে নেয়া হয়নি। অবশেষে আজ তাকে কেবিনে স্থানান্তর করা হলো।

এর আগে গতকাল ১২ মার্চ মঙ্গলবার অধ্যাপক আবু নাসের জানিয়েছিলেন সেতুমন্ত্রী ওঠে দাঁড়াতে পারছেন। চিকিৎসকদের সঙ্গে নিজের সমস্যার কথা বলতে পারছেন। মঙ্গলবার পরিবারের সদস্য ও সিঙ্গাপুরে অবস্থানরত আওয়ামী লীগ নেতারা তাকে দেখতে গেলে তিনি তাদের সঙ্গে কুশলবিনিময় করেন। একটু হেঁটেছেনও।

Print Friendly, PDF & Email

Related posts