বাঙালিনিউজ
কলকাতার ঐতিহ্যবাহী আন্তর্জাতিক বইমেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন। ছবি: ভাস্কর মুখার্জি

বাঙালিনিউজ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

এবার কলকাতার ঐতিহ্যবাহী আন্তর্জাতিক গতবারের তুলনায় একদিন কম হলেও বিক্রি বেড়েছে। এবার বই বিক্রি হয়েছে ২১ কোটি রুপির। এবার কলকাতা বইমেলায় দর্শক সংখ্যাও বেড়েছে। দেখতে এসেছিল ২৩ লাখ মানুষ। তাছাড়া এবারের কলকাতা বইমেলার দিনগুলোতে আবহাওয়া ভালো ছিল।

বইমেলার উদ্যোক্তা পাবলিশার্স অ্যান্ড বুক সেলার্স গিল্ডের পরিচালক শুধাংশু শেখর দে কলকাতা বইমেলা শেষে একথা বলেছেন।

গতকাল ছিল কলকাতা বইমেলায় শেষ দিন। এ দিন বইমেলায় বিভিন্ন বিভাগে বিজয়ীদের পুরস্কার দেওয়া হয়। ভারতে নিযুক্ত গুয়াতেমালার রাষ্ট্রদূত জিয়োবান্নি কাসতিয়ো বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। এবারের বইমেলার থিম কান্ট্রি ছিল গুয়াতেমালা। আগামি বছরের বইমেলার থিম কান্ট্রি হবে রাশিয়া।

গতকাল ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ সোমবার রাত ৯টায়, ঘণ্টা বাজিয়ে কলকাতার ঐতিহ্যবাহী আন্তর্জাতিক বইমেলা শেষ হয়েছে। শুরু হয়েছিল ৩১ জানুয়ারি, ঘণ্টা বাজিয়েই। বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন এবার বইমেলার সেরা জনপ্রিয় প্যাভিলিয়ন হিসেবে পুরস্কার পেয়েছে। প্যাভিলিয়নটি তৈরি হয়েছিল সাড়ে ৩ হাজার ফুট জায়গাজুড়ে, ঢাকার রোজ গার্ডেনের আদলে।

এবারের বইমেলায় নদীয়ার চাকদহের এক শিক্ষক দেবব্রত চট্টোপাধ্যায় একাই ২ লাখ ৭২ হাজার রুপির বই কিনে নতুন এক রেকর্ড গড়েছেন। তাঁকে বইমেলার সমাপ্তি অনুষ্ঠানে আয়োজক সংস্থা পুরস্কৃত করে। তিনিও বলেছেন, তাঁর বাড়ির ব্যক্তিগত লাইব্রেরিতে ১২ থেকে ১৪ হাজার বই রয়েছে। এবার তিনি নতুন বই দিয়ে তার লাইব্রেরি সাজিয়ে তুলবেন।

চলতি বছর ২০১৯ সালের ৩১ জানুয়ারি বিকেলে কলকাতার সল্ট লেকের সেন্ট্রাল পার্কে ঘণ্টা বাজিয়ে বইমেলার উদ্বোধন করেছিলেন গুয়াতেমালার প্রখ্যাত সাহিত্যিক অধ্যাপক ইউডা মোরেস। বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর বিশেষ অতিথি ছিলেন ভারতে নিযুক্ত গুয়াতেমালার রাষ্ট্রদূত জিয়োবান্নি কাসতিয়ো। তিনিই অনুষ্ঠান মঞ্চে ঘণ্টা বাজিয়ে এবারের বইমেলার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

এবারের এই কলকাতা বইমেলা ৪৩ বছরে পা দিয়েছে। এই বইমেলার আয়োজক কলকাতার পাবলিশার্স অ্যান্ড বুক সেলার্স গিল্ড। এবারের কলকাতা বইমেলায় বাংলাদেশ ছাড়াও যোগ দিয়েছে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ভিয়েতনাম, জাপান, চীন, ইরান, কোস্টারিকা, স্পেন, স্কটল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, আর্জেন্টিনাসহ বিশ্বের ২১টি দেশ ও দেশের প্রকাশকেরা। যোগ দিয়েছে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের প্রকাশকরাও। এবার বইমেলায় সব মিলিয়ে ৮০০টি স্টল ছিল। এর মধ্যে ২০০টি লিটল ম্যাগাজিনের স্টল।

প্রতিবারের ন্যায় এবারও বইমেলায় যোগ দিয়েছিল বাংলাদেশের প্রকাশনা সংস্থাগুলো। বাংলাদেশ থেকে এবার যোগ দিয়েছিল ৪৫টি প্রকাশনা সংস্থা। এর মধ্যে ৮টি সরকারি প্রকাশনা সংস্থা। বইমেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন এবার দর্শকদের মন কেড়ে নিয়েছিল। তাই গতকাল সোমবার বইমেলার সমাপ্তি অনুষ্ঠানে এবারের বইমেলার জনপ্রিয় প্যাভিলিয়ন হিসেবে সেরা পুরস্কার পায় বাংলাদেশ।

গত রোববার এই বইমেলায় উদ্‌যাপিত হয়েছে বাংলাদেশ দিবস। এ উপলক্ষে আয়োজিত সেমিনারে যোগ দেন বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের প্রথিতযশা কবি, সাহিত্যিক, সাংবাদিক এবং শিল্পীরা। এই সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। সেমিনারের বিষয় ছিল ’বাংলা সাহিত্য ও বঙ্গবন্ধু’।

Print Friendly, PDF & Email