বাঙালিনিউজ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

নাসার চন্দ্র অভিযানের ৫০ বছর পেরোল মাত্র কয়েক দিন আগে। এর পরপরই ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরোর পাঠানো চন্দ্রযান উড়ে গেছে চাঁদের দক্ষিণ মেরুর দিকে। এবার চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে নারী নভোচর পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে নাসা।

জানা গেছে, সব ঠিক থাকলে ২০২৪ সালেই অভিযাত্রীদের নিয়ে চাঁদে পৌঁছবে চন্দ্রযান আর্তেমিস। ১৯৬৯ সালের জুলাইয়ে প্রথম অভিযাত্রী চাঁদে নেমেছিল নাসার অ্যাপোলো ১১। তারপরে ৫০ বছর পার হয়েছে। অ্যাপোলোর পরে এবার চাঁদে পাড়ি দেবেন আর্তেমিস।

নাসার পাঠানো অ্যাপোলো থেকে নেমে চাঁদের মাটিতে হেঁটেছিলেন দুই মহাকাশচারী, নীল আর্মস্ট্রং আর এডউইন অলড্রিন। অ্যাপোলোতে ছিলেন আরও এক অভিযাত্রী, মাইকেল কলিন্স। তিনজনই পুরুষ। কিন্তু এবার, এই প্রথম, চন্দ্রপৃষ্ঠে হাঁটবেন এক নারী মহাকাশচারী। আর চাঁদে প্রথম নারী অভিযাত্রী নিয়ে অবতরণ করতে চলা এই চন্দ্রযানের নামকরণ করা হয়েছে চাঁদের দেবী আর্তেমিসের নামে।

গ্রিক পুরাণ অনুযায়ী, অ্যাপোলো আর আর্তেমিস দুই যমজ ভাইবোন। দু’জনই গ্রিক দেবতা জিউসের সন্তান। অ্যাপোলো হলেন সূর্য, আলো ও জ্ঞানের দেবতা। আর আর্তেমিস চাঁদ ও বন্যপ্রাণীর দেবী। চাঁদে প্রথম নারী অভিযাত্রীকে নিয়ে যাওয়ার এই অভিযানের নাম তাই দেয়া হয়েছে সেই দেবী আর্তেমিসেরই নামে।

২০২৪ সালে চাঁদে প্রথম নারী অভিযাত্রীকে পৌঁছে দেয়া নিয়ে নাসার পরিকল্পনার কথা দীর্ঘদিন ধরেই শোনা যাচ্ছিল। এমনকী সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই তরুণী মহাকাশচারীর বাড়ি, পরিবার, বয়স সংক্রান্ত তথ্যও ঘোরা-ফেরা করছিল বিভিন্ন মাধ্যমে।

যদিও নাসার পক্ষ থেকে সরকারিভাবে এই ব্যাপারে এতদিন কিছুই জানানো হয়নি। সম্প্রতি আর্তেমিস-৩ অভিযানের কথা ঘোষণা করছে নাসা। তারা জানিয়েছে, এই আর্তেমিসই তাদের মঙ্গলে মানব অভিযাত্রী পাঠানোরও পথ দেখাবে।

Print Friendly, PDF & Email