বাঙালিনিউজ

বাঙালিনিউজ
নিজস্ব প্রতিদেক

আজ ০২ আগস্ট ২০১৯ শুক্রবার সন্ধ্যায়, বাংলাদেশের আকাশে জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে আগামী ১২ আগস্ট সোমবার দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ উদযাপন করা হবে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বায়তুল মোকাররমের সভাকক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের চাঁদ দেখা কমিটির সভা শেষে সংবাদ সম্মেলন করে চাঁদ দেখা যাওয়ার বিষয়টি জানান ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট কমিটির সভাপতি শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ।

বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়টি জানিয়ে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, অধিকাংশ জেলায় জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। বিভিন্ন জেলা প্রশাসক, আবহাওয়াবিদ ও মসজিদের ঈমামরা চাঁদ দেখার কথা জানিয়েছেন। সে অনুযায়ী আগামীকাল ০৩ আগস্ট শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে জিলহজ মাস। আর ১২ আগস্ট উদযাপিত হবে পবিত্র ঈদুল আজহা।

সভায় উপস্থিত ছিলেন ধর্ম সচিব আনিসুর রহমান, শোলাকিয়া ঈদগাহের ঈমাম মাসউদসহ রাজধানীর একাধিক মসজিদের পেশ ঈমাম ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তারা।

জিলহজ মাসের ১০ তারিখে মুসলমানরা তাদের অন্যতম বড় এই ধর্মীয় উৎসবে পশু কোরবানি দেন, যার মধ্য দিয়ে নিজের ভেতরের কলুষতাকে বর্জন এবং সৃষ্টিকর্তার সন্তুষ্টি লাভই ইসলামের শিক্ষা।

সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে গতকাল ০১ আগস্ট বৃহস্পতিবার জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। সে হিসেবে আগামী ১০ আগস্ট শনিবার পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। পরদিন ১১ আগস্ট রোববার সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন করা হবে।

এর আগে ০১ আগস্ট বৃহস্পতিবার সৌদি আরবের তুমাইর এলাকায় জিলহজ মাসের চাদঁ দেখা যায় বলে জানায় দেশটির চাঁদ দেখা কমিটি। তাই সেখানে আজ ০২ আগস্ট শুক্রবার থেকে জিলহজ মাসের গণনা শুরু হয়েছে। এর ফলে আগামী ০৮ আগস্ট বৃহস্পতিবার হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। এ দিন সন্ধ্যার পরপরই মক্কা থেকে মিনার উদ্দেশে রওনা হবেন হাজিরা।

পরদিন ০৯ আগস্ট শুক্রবার ০৯ আগস্ট সারাদিন মিনায় অবস্থান করে সে দিন রাতে আরাফাতের ময়দানের দিকে যাত্রা করবেন তারা। পরদিন ১০ আগস্ট শনিবার আরাফাতের ময়দানে অবস্থিত মসজিদে নামিরা থেকে হজের খুৎবা দেওয়া হবে। হজের খুৎবা শেষে সেখানে জোহর ও আসরের নামাজ পড়বেন হাজিরা।

সে দিন সূর্যাস্তের পর আরাফাত থেকে মুজদালিফায় যাবেন। সেখানে গিয়ে তারা মাগরিব ও এশার নামাজ আদায় করবেন। মুজদালিফায় খোলা আকাশের নিচে সারারাত অবস্থানের পর শয়তানের প্রতীকী স্তম্ভে পাথর নিক্ষেপের জন্য প্রস্তুতি নেবেন বিভিন্ন দেশ থেকে হজ সফরে যাওয়া বিভিন্ন দেশের হজযাত্রীরা।

এরপর ১১ আগস্ট রোববার ফজরের নামাজ শেষে বড় জামারায় (প্রতীকী বড় শয়তান) পাথর নিক্ষেপ করতে মিনায় যাবেন তারা। পাথর নিক্ষেপ শেষে পশু কোরবানি দেবেন তারা।

এ বছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় ২৫ লাখ হজ পালনার্থীর সৌদি আরবে পৌঁছার কথা। আর বাংলাদেশ থেকে হজ করতে সৌদি আরবে যাওয়ার কথা এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭ হাজার ১৯৮ ব্যালটি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৫৬ হাজার ৪০১ নন-ব্যালটি হজ করতে যাচ্ছেন।

এবার ঈদে ১১, ১২ ও ১৩ আগস্ট সরকারি ছুটি থাকবে। গ্রামের বাড়িতে প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে রেল, সড়ক ও নৌপথে রাজধানী ছাড়বেন অসংখ্য মানুষ। এতে ফাঁকা হয়ে পড়বে ঢাকা।

Print Friendly, PDF & Email