বাঙালিনিউজ
আজ ১৭ মার্চ ২০১৯ রোববার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্যজোট। ছবি: সংগৃহীত

বাঙালিনিউজ
নিজস্ব প্রতিবেদক

আগামীকাল ১৮ মার্চ ২০১৯ সোমবার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন এবং ভিসি কার্যালয়ের সামনে অবস্থানের ঘোষণা দিয়েছে প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্যজোট। ডাকসু নির্বাচন বাতিল, পুনঃতফসিল ঘোষণা ও ভিসির পদত্যাগের দাবিতে আজ ১৭ মার্চ রোববার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্যজোটের ভিপি প্রার্থী ও ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী।

সংবাদ সম্মেলনে লিটন নন্দী বলেন, ১১ মার্চের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায় রচিত হয়েছে। এই নির্বাচন আমরা মানি না। ত্রুটিপূর্ণ নির্বাচনকে আমরা বৈধতা দিতে পারি না। এই ডাকসু আমাদের ডাকসু না। আগামীকাল ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন এবং ভিসি কার্যালয়ে অবস্থানের মধ্য দিয়ে আমরা দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলব।

সংবাদ সম্মেলনে পাঁচটি প্যানেলের উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও ছাত্রজোট ছাড়া অন্য কোনো প্যানেলের কেউ সেখানে ছিলেন না।

এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে লিটন নন্দী বলেন, অন্যরা এখনও ইন্টারনাল কিছু দ্বিধাদ্বন্দ্বে আছে। তারাও আপনাদের সাথে তাদের অবস্থান পরিষ্কার করবে বলে আমরা আশা করছি। তবে আমরা আমাদের অবস্থান পরিষ্কার করছি।

গতকাল গণভবনে ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরের বক্তব্যের বিষয়ে লিটন বলেন, তার বক্তব্যের কিছু অংশ প্যানেলের সাথে সাংঘর্ষিক। তিনি যদি এ বক্তব্যে অটল থাকেন, তাহলে ছাত্র সমাজের সাথে প্রতারণা করবেন। তার এ বক্তব্য আমাদের আন্দোলনের স্পিড কমিয়ে দিয়েছে এবং ছাত্রসমাজকে ধোঁয়াশায় ফেলেছে। আমরা মনে করি তিনি শীঘ্রই তার অবস্থান পরিষ্কার করবেন।

লিটন নন্দী বলেন, জালিয়াতির ডাকসু নির্বাচন বাতিল করতে হবে, পুনঃতফসিল ঘোষণা করতে হবে এবং ব্যর্থ ভিসিকে পদত্যাগ করতে হবে। একইসঙ্গে নির্বাচনে কারচুপির সাথে জড়িত শিক্ষকদের পদত্যাগ করতে হবে এবং মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। এ সময় তার সঙ্গে জোটভুক্ত ছাত্রফ্রন্ট, ছাত্র ফেডারেশন, বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রী, ছাত্রগণমঞ্চ, বিপ্লবী ছাত্র আন্দোলনসহ ১০টি ছাত্র সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email